First Call for the Planning Meeting of KRPW 2017

**English  and Hindi versions below**

বন্ধুগণ,

এই বছরের কোলকাতা রেনবো প্রাইড ওয়াক সংক্রান্ত প্রথম পরিকল্পনা-সভার বিবরণ দেওয়া হ’ল। দয়া করে অন্যান্য বন্ধুদের মধ্যে এই তথ্য প্রচার করুন যারা এই বছরের মিছিল সংগঠন-প্রক্রিয়াতে অবদান রাখতে ইচ্ছুক।

আমরা এই সভায় কোনো নির্দৃষ্ট বিষয়সূচি রাখি নি, তবে বৈঠকে আমরা নিম্নলিখিত বিষয়গুলির উপর মতামত আশা করব:

১. প্রাইড ওয়াকে উল্লেখ করা প্রয়োজন এমন থিম এবং বিষয়
২. মিছিলের তারিখ
৩. মিছিলের পথ
৪. মিছিলের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাপনা

যদি আমরা #KRPW2016-র বিষয়ে প্রতিক্রিয়া গ্রহণ দিয়ে শুরু করি তাহলে বিষয়টি সত্যিই উপযোগী হবে এবং উপলব্ধি করতে পারব যে কি ধরণের সমস্যা গত বছর হয়েছে এবং কীভাবে মিছিল আরো উৎকৃষ্ট করা যায়।

তো দেখা হচ্ছে ৮ই অক্টোবর, বিকেল ৬ টার সময় নন্দন-এ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মূর্তির কাছে!

 


दोस्तों,

इस साल के कोलकाता रेनबो प्राइड वॉक के बारे में पहली नियोजक सभा (प्लॅनिंग मीटिंग) का विवरण दिया जा रहा है। कृपया अपने बाकी दोस्तों, और उन जानने वालों में ये जानकारी फैला दें जो इस साल के वॉक के नियोजन से जुड़ना चाहते हैं या उसमे योगदान करना चाहते हैं।

इस पहली सभा का कोई निश्चित कार्यसूची नहीं है, मगर इस बैठक के दौरान हम कुछ बातों पर चर्चा और मतों के आदान प्रदान की अपेक्षा रखते हैं जैसे:

१. ऐसे थीम या जरूरी विषय जिनका प्राइड वॉक में उल्लेख होना चाहिए

२. वॉक की तारिख

३. वॉक का मार्ग निर्धारण

४. इस वॉक से सम्बंधित और भी आवश्यक नियोजन

अगर हम #KRPW2016 के विषय में प्रतिक्रियाएं देकर और सुनकर इस सभा का आरम्भ करें तो ये उपयोगी रहेगा और हम समझ सकेंगे कि पिछले साल किस तरह की समस्याएं आईं थीं और इस साल वॉक को कैसे और बेहतर बनाया जाये।

तो फिर मिलते है… ८ अक्टूबर को, शाम के ६ बजे, नंदन में रविंद्रनाथ ठाकुर की मूर्ति के पास!


Dear all,

Please find attached the image with the details regarding the first planning meeting to organize Kolkata Rainbow Pride Walk this year. Please share and circulate the information with others who you feel can contribute to the organizing process of this year’s walk.

We are not putting out a particular agenda for the meeting but we hope to gather suggestions on the following at the meeting:

1. Theme and issues which need to be highlighted at the Pride Walk
2. Date of the Walk
3. Route of the Walk
4. Arrangements necessary for the Walk

It will be really helpful if we begin with receiving feedback about KRPW, 2016 and understand what were the shortcomings and how to make things better this year.

So see you all on 8th October at 6 PM @ Nandan near Tagore’s statue!

In Solidarity,

 

Update: the meeting concluded successfully on 8th October amidst an overcast sky and moist weather. Loads of new ideas flowed forth and new resolutions were taken to make this year’s Pride an awesome experience! The MoM will be circulated soon amongst the relevant members.

MOM of the meeting can be found here.

The official release PDFs of the MOM can be found at :

English: https://goo.gl/wvja1c | Bangla: https://goo.gl/g8uUph

The Second Call will be held on 5th November 2017. Stay tuned!

#KRPW2017

Advertisements

The Minutes of the 1st Planning Meeting for Kolkata Rainbow Pride Walk, 2017

The official release PDFs of the MOM can be found at: English: https://goo.gl/wvja1c | Bangla: https://goo.gl/g8uUph

(বাংলা নীচে)

Dear all,

Greetings! We are happy to share the minutes of the 1st planning meeting for Kolkata Rainbow Pride Walk – 2017 which took place on 8th October, 2017. There were many friends present at the meeting and we missed many others. Hoping to see them at the next planning meeting which has been scheduled for 5th November, 2017. Please find below the Bengali and English version of the minutes of the meeting. We look forward to your responses and suggestions. Please try and respond within a week from now.

First Planning Meeting for KRPW 2017
Held on 8th October 2017 @ Nandan
Second Planning Meeting will be held on 5th November 2017

Feedbacks received from Kolkata Rainbow Pride Walk 2016
• Preferably shorter route than the last year keeping in mind senior citizens, differently abled people.
• Some participants can provide vehicles in addition to the vehicle arranged by the organizing team to provide services during emergencies
• Accommodation for participants coming from other parts of West Bengal to stay back safely
• Inclusion of mental health and disability issues in the Pride. Making the Pride Walk comfortable for the participants who are differently abled.
• ‘2-line syndrome’ is a problem. It has been enforced by volunteers in the past pride walks as it’s easier to maintain traffic on the roads and for personal safety of participants as per instruction from police. This practice has come under criticism from participants as ‘restrictive’. We need to figure out a way to solve this crisis keeping both the need of the police and participants in mind.
• It was suggested the volunteers should be changed at regular intervals to avoid burn out cases
• It was suggested that to manage the crowd and as an alternative to maintaining 2 lines while walking, a cord/rope be tied to the leading vehicle and carried by volunteers stretched out the entire length of the crowd on the side which is exposed to the traffic, to create a barricade between the participants and the traffic while not restricting them to follow the ‘walk in 2 lines’ practice.
• Larger and more numbers of posters to be made if possible and made easier for participants to carry.
• Clear slogans to resonate from all parts of the Walk

Important dates decided for the walk
1. 10th December – Sunday – International Human Rights Day
2. 17th December – Sunday – if 10th of December does not work out

Potential routes
1. Triangular Park to Rabindra Sadan – 4 kms
2. Lake to Park Circus Maidan – 5 kms
3. Triangular Park / Golpark to Park Circus – 4 kms
4. Desapriya Park to Park Circus Maidan – 4 kms

• Police permission will be arranged by Santanu Giri

Theme/message we want to voice through this year’s Pride
• Systemic violation of human rights of LGBTQ people in India – will include

1. Upcoming Transgender Bill which will make the NALSA verdict obsolete:

Among all the legal realities around the rights of transgender and other gender variant individuals in post-Independent India, Supreme Court of India’s verdict in National Legal Service Authority Vs. Union of India & Ors. in the year 2014, popularly known as NALSA verdict, in which the Apex Court upheld the Constitutional rights of transgender people living in India is the most important and path-breaking one. In its 113-page verdict, a division bench of the Supreme Court of India, comprised of Justice Sikri and Justice Radhakrishnan, delivered one of the most progressive judgments on individual’s gender identity and on the definition of ‘thirdness’ – a metaphor of otherness.

In NALSA Verdict, the Apex Court not only affirmed the fundamental rights and freedoms of transgender and other gender-variant individuals, but it also upheld individual’s right to decide their self-identified gender identity. In accordance with Yogyakarta’s Principles, adopted by the United Nations in the year 2007, Justice Radhakrishnan bench argued that one’s gender identity or ‘psychological sex’ cannot be determined by few surgical procedures, popularly known as Sex Reassignment Surgery, which few transgender individuals choose to or can afford to undergo. The Apex Court thus termed any insistence of SRS and/or examining one’s genital organ for determining one’s gender identity illegal and immoral.

However, this progressive verdict is now at risk, as the government of India is trying to water down the directives of NALSA Verdict by introducing a bill, which many transgender and other gender & sexuality-rights activists are fighting against. After more than two years of Supreme Court passed NALSA verdict, Ministry of Social Justice and Empowerment (MSJE) of government of India drafted “Transgender Persons (Protection of Rights) Bill, 2016”, which later was introduced in the Lok Sabha, lower house of Indian Parliament. Apart from several controversies, including incorrectly defining transgender individuals, that the bill has landed into, MSJE also introduced the idea of forming district screening committee to determine whether a person is transgender or not. And other than having government official and a psychiatrist, the proposed screening committee will also have a medical doctor, where the transgender individuals would mostly undergo deeply offensive “genitalia check” process in order to be identified as transgender by the screening committee. It goes without saying that this proposed process of setting-up district screening committee is at a stark contrast with the right to self-identified gender identity granted by the Supreme Court in NALSA Verdict. Although the bill had been withdrawn from the Lok Sabha by the Ministry, this year the Parliamentary Standing Committee under MSJE submitted its report, in which the problematic notion of determining transgender person by a thorough medical check-up (“genitalia check”) remains intact. So the chance of MSJE reintroducing the bill, keeping the outrageous clause intact, and passing the same in any of the upcoming sessions of the Indian Parliament is very high.

However, the situation is grimmer than what is being anticipated by many belonging to gender and sexual minority communities. It is a fact that under Articles 141 and 142 of the Constitution of India, NALSA Verdict is binding on all of us, including all the courts across the nation. This is because, in absence of any law – transgender persons law in this case – if judiciary or the Supreme Court of India gives directions, the same will then be deemed to be law until the parliament makes a law. Therefore, NALSA Verdict is available to us till the Indian Parliament makes a law, i.e. successfully passing the outrageous and deeply offensive Transgender Persons (Protection of Rights) Bill, 2016 in both the houses of Indian Parliament. The day Parliament finally makes a law out of NALSA verdict; the verdict will be nullified or obsolete and cannot be invoked to uphold the Constitutional rights of transgender and other gender-variant individuals. So in one word, all the progressive directives in the NALSA Verdict can be completely washed away once the bill, which the government of India is trying pass, is actually passed in the Indian Parliament.

Thus a resistance must be built up against this bill.

2. India’s stand against the death penalty at UNHRC

On September 29 this year, India, along with 12 other countries, voted against a resolution tabled at (now adopted) United Nations Human Rights Council (UNHRC) which had sought to limit the application of the death penalty to the “rarest of the rare” cases and ensure non-discriminatory application of death penalty as well identify the “underlying factors that contribute to the substantial racial and ethnic bias in application of the death penalty.

Over the years, India has generally voted “no” on the moratorium on death penalty resolutions both at the UN General Assembly and at the UN Human Rights Council. This position has not varied much under different administrations. India, on the international stage, is developing a reputation as a wilful obstructer to development of human rights norms rather than as a human rights leader (as behoves the world’s largest democracy). India’s stand is also in a sharp contrast with the decisions of the Supreme Court of India, which has sought to the limit the application of death penalty and to protect the rights of those who have been sentenced to death.

However, the resolution brought this year has significant differences from its previous iterations. This year, for the first time, the resolution talked about the disproportionate sentencing of racial and ethnic minorities, condemned the use of death penalty in blasphemy, apostasy and consensual same-sex relations. India’s vote, however, remained unchanged.

India’s vote on the death penalty showed hostility for the proposition that death penalty should not be imposed for “apostasy, adultery and consensual same sex relations”. Since the Constitutional position is that death penalty can be imposed only “in the rarest of the rare cases”, that rules out any future fanciful possibility of imposing the death penalty for “apostasy, adultery and consensual same-sex relations” in India. Such act would fall foul of the Indian Constitution as it has been interpreted by the Supreme Court.
However, India belongs to a group of 77 nations which have existing laws that criminalize either different identities or the intimate lives of gender and sexual minority communities. Among those 77 such nations, 11 nations penalize the queer lives by death. Apart from that, the fundamentalist religious ruler that seems to terrorize certain parts of Iraq and Syria regularly executes people for being queer. And by voting against the UNHRC resolution, India now made it clear that it supports such heinous crime, in which “Right to Love”, one of the important aspects of “Right to Life”, gets severely violated.

So the government of India must answer that under what circumstances it supports death penalty for consensual same-sex relation? Is it because of the path of religious fundamentalism that the government of India has quietly adopted after 2014 general election? Does the government secretly want to kill all the queer individuals and since our Constitution is not allowing them to do so, it actually supports killing of queer people in other countries and regions. Last year, India has also refused to take a stand in another resolution in the UNHRC which asked the member states to provide legal protection against the violence and discrimination that people receive because of their preferred or perceived sexual orientation and gender identity. First refusing to protect the queer people and now secretly supporting the killing of queer people – all these stands are deeply problematic and flout our Constitutional moralities. And government of India doesn’t seem to care much, which must be resisted.

Tasks
• Volunteer required for police permission for Triangular Park
• Sandipta wants to do a performance just before the commencement of the Pride Walk, she will be in charge of the execution.

Miscellany
• Pre-Pride workshop date will be announced by KRPF on a later date

We are looking forward to suggestions, comments, reactions to the points mentioned in this MOM, from everyone. Please be vocal.

দ্বিতীয় পরিকল্পনা সভা ৫ই নভেম্বর, ২০১৭-এ হবে

কলকাতা রেনবো প্রাইড ওয়াক ২০১৬ থেকে পাওয়া প্রতিক্রিয়া
 বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী মানুষদের কথা মাথায় রেখে ওয়াকের দৈর্ঘ্য আগের থেকে ছোট করা হলে ভালো হয়,
 সংগঠকদের গাড়ি ছাড়াও অংশগ্রহণকারীরা চাইলে নিজেদের গাড়ি সাহায্যর জন্য দিতে পারেন কোনো সঙ্কটের সময়,
 যারা পশ্চিমবঙ্গের অন্যান্য জায়গা ও বাইরে থেকে যোগদান করছেন তাদের নিরাপদ বাসস্থানের ব্যবস্থা করা হোক,
 মানসিক স্বাস্থ্য ও প্রতিবন্ধী অধিকারকে প্রাইডের অংশ করা হোক, যাতে প্রতিবন্ধী মানুষরাও এই প্রাইডে সাবলীলভাবে অংশগ্রহণে আগ্রহী হন,
 ‘২-লাইন পদ্ধতি’ আমাদের স্বেচ্ছাকর্মীরা প্রাইডগুলিতে ব্যবহার করে এসেছেন যাতে অংশগ্রহণকারীরা নিরাপদে হাঁটতে পারেন, যানজট না হয় এবং পুলিশের নির্দেশ মানা হয়। কিন্তু এই পদ্ধতির সমালোচকেরা এটিকে ‘নিয়ন্ত্রণমূলক’ হিসেবে ব্যাখ্যা করেছেন। আমাদের এই সমস্যার একটি সহায়ক সমাধান খুঁজতে হবে পুলিশ ও অংশগ্রহণকারীদের কথা মাথায় রেখে।
 এটিও সুপারিশ করা হয়েছে যে স্বেচ্ছাকর্মীদের কিছু সময় অন্তর পরিবর্তন করা হোক তাঁদের স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে,
 সুপারিশ করা হয়েছে যে ভিড়কে সামলাতে ‘২-লাইন পদ্ধতির’ পরিবর্তে একটি দড়ি বা তার-কে সামনের গাড়িতে বেঁধে সেটিকে পুরো ওয়াকের প্রসারণ অবধি যেই দিকে যানবাহন রয়েছে সেই দিকে রাখা হোক একটি ব্যারিকেড হিসেবে যাতে সেটি যানবাহন ও অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে একটি দূরত্ব বজায় রাখে এবং তাদের ‘২-লাইন পদ্ধতিতে’ হাঁটতে না হয়,
 আরো বেশি সংখ্যক পোস্টার বানানো হোক আর সেগুলি যেন অংশগ্রহণকারীদের বহন করতে সুবিধা হয়। এটিও সুপারিশ করা হয় যে, কেআরপিএফ-এর প্রি-প্রাইড ওয়ার্কশপে তৈরী পোস্টারগুলি যে সকল অংশগ্রহণকারীরা মনে করেন তাঁদের জন্য মানানসই, তাদেরকেই দেওয়া হোক।
 সহজবোধ্য স্লোগান যেগুলো পুরো প্রাইডে অনুরণিত হতে পারে, সেই রকম স্লোগান বাছা হোক।

গুরুত্বপূর্ণ যেই দিনগুলিতে প্রাইড হতে পারে
১. ১০ই ডিসেম্বর – রবিবার – আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস
২. ১৭ই ডিসেম্বর – রবিবার – যদি ১০ই ডিসেম্বরে সম্ভব না হয়

সম্ভাব্য যাত্রাপথ
১. ট্রায়াঙ্গুলার পার্ক থেকে রবীন্দ্র সদন – ৪ কিমি
২. লেক থেকে পার্ক সার্কাস ময়দান – ৫ কিমি
৩. গোলপার্ক থেকে পার্ক সার্কাস – ৪ কিমি
৪. দেশপ্রিয় পার্ক/ট্রায়াঙ্গুলার পার্ক থেকে পার্ক সার্কাস ময়দান – ৪ কিমি

 পুলিশের অনুমতি নেবেন শান্তনু গিরি

বিষয়/বার্তা যা আমরা এই বছরের প্রাইডে ব্যক্ত করতে চাই

নালসা রায়কে বাতিল করবার জন্য সরকার প্রস্তাবিত ট্রান্সজেন্ডার বিলঃ

স্বাধীন ভারতে রূপান্তরকামী এবং অন্যান্য প্রান্তিক বা বৈকল্পিক লিঙ্গের মানুষজনের আইনী অধিকারের ব্যাপারে ন্যাশনাল লিগাল সার্ভিস অথরিটি এবং ইউনিয়ন অফ ইন্ডিয়ার মধ্যে চলা মামলায় সুপ্রিম কোর্টের দেওয়া ২০১৪ সালের রায়টিকে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলা চলে, যেটি NALSA Verdict নামে পরিচিত। এই রায়ের মাধ্যমে ভারতের সর্বোচ্চ আদালত ভারতে বসবাসকারী ট্রান্সজেন্ডার (রূপান্তরকামী, বৈকল্পিক লিঙ্গ) মানুষজনের সাংবিধানিক অধিকারকে সমর্থন করেছে। সুপ্রিম কোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ ব্যক্তির লিঙ্গপরিচয় এবং তৃতীয় লিঙ্গের তৃতীয়ত্ব বিষয়ে একটি অত্যন্ত প্রগতিশীল রায় দিয়েছিলেন। এই রায়ে সর্বোচ্চ আদালত রূপান্তরকামী এবং অন্যান্য প্রান্তিক লিঙ্গের মানুষজনের মৌলিক অধিকারসমূহকে শুধুমাত্র সুনিশ্চিতই করেনি, তার সাথে প্রত্যেক ব্যক্তির নিজের লিঙ্গপরিচয়ের স্ব-নির্ধারণের অধিকারকেও সমর্থন জানিয়েছেন। ২০০৭ সালে ইউনাইটেড নেশনসের (রাষ্ট্রসংঘ) দ্বারা গৃহীত Yogyakarta’s principles মেনে জাস্টিস রাধাকৃষ্ণনের বেঞ্চ যুক্তি দিয়েছিল যে, ব্যক্তির লিঙ্গপরিচয় বা মনস্তাত্ত্বিক লিঙ্গ শুধুমাত্র কিছু শল্যচিকিৎসাগত পদ্ধতির দ্বারা নির্ধারিত হতে পারে না (যা সেক্স রিঅ্যাসাইনমেন্ট সার্জারি বা SRS নামে পরিচিত এবং যা অল্প কিছু সংখ্যক ট্রান্সজেন্ডার ব্যক্তিই নির্বাচন করেন বা করবার মতো আর্থিক ক্ষমতা রাখেন)। ফলে, সর্ব্বোচ্চ আদালত ব্যক্তির লিঙ্গপরিচয় নিরূপনের জন্য SRS এর উপর জোর দেওয়া বা যৌনাঙ্গের প্রকৃতি পরীক্ষা করাকে বেআইনি এবং অনৈতিক বলে ঘোষণা করে।

তবে এই রায়টি সম্প্রতি বিশেষ বিপদের সম্মুখীন। কারণ, বর্তমান ভারত সরকার নালসা রায়ের নির্দেশনামাকে লঘু করে তোলবার জন্য এমন একটি বিল প্রস্তাব করেছে যার বিরুদ্ধে বহু রূপান্তরকামী এবং লিঙ্গ/যৌনতা অধিকার নিয়ে কর্মরত সমাজকর্মীরা সোচ্চার হয়েছেন এবং লড়াইয়ের প্রয়োজন বোধ করছেন।

সুপ্রিম কোর্টের নালসা রায় প্রদানের দু’ বছরের কিছু বেশি পরে ভারত সরকারের মিনিস্ট্রি অফ সোশাল জাস্টিস অ্যান্ড এমপাওয়ারমেন্ট (MSJE) ‘ট্রান্সজেন্ডার পারসনস প্রোটেকশন অফ রাইটস বিল, ২০১৬’ নামে একটি বিলের খসড়া তৈরী করে। এটি লোকসভার লোয়ার হাউজে প্রস্তাবিতও হয়। বিলটি বিভিন্ন কারণে বিতর্কিত, যাদের মধ্যে অন্যতম কারণ হল, কাকে ‘রূপান্তরকামী’ বলা যাবে সে বিষয়ে বিভ্রান্তিকর এবং অযথার্থ সংজ্ঞায়ণ । সর্বোপরি, MSJE কোনো ব্যক্তি ট্রান্সজেন্ডার না ট্রান্সজেন্ডার নয় তা সুনিশ্চিত করার জন্য একটি জেলাভিত্তিক ‘ডিস্ট্রিক্ট স্ক্রিনিং কমিটি’ গঠন করার প্রস্তাব রাখে। এই প্রস্তাবিত স্ক্রিনিং কমিটিতে সরকারী আধিকারিক এবং মনোবিদ (সাইকিয়াট্রিস্ট) ছাড়াও ডাক্তাররা থাকবেন এবং সেখানে স্ক্রিনিং কমিটির দ্বারা ট্রান্সজেন্ডার হিসেবে স্বীকৃত হওয়ার জন্য ব্যক্তিবর্গকে যৌনাঙ্গ-পরীক্ষনের মধ্যে দিয়েও যেতে হতে পারে, যা লিঙ্গ স্বনির্ধারণের নিরিখে গভীরভাবে আপত্তিকর । বলাই বাহুল্য, এই ধরনের ডিস্ট্রিক্ট স্ক্রিনিং কমিটির নির্মাণ সুপ্রিম কোর্টের নালসা রায়ের ব্যক্তির লিঙ্গের স্ব-নির্ণয় নীতির প্রবলভাবে বিরোধী ।

যদিও উক্ত মন্ত্রকের দ্বারা বিলটি লোকসভার থেকে প্রত্যাহৃত হয়েছে, তবুও পার্লামেন্টারি স্ট্যান্ডিং কমিটি MSJE-র অধীনে যে রিপোর্ট জমা দিয়েছে, তাতে ডাক্তারি চেক আপের দ্বারা (জেনিটালিয়া চেক) লিঙ্গান্তরকামী পরিচয় নির্ধারণের বিষয়টা থেকেই গেছে। সুতরাং, MSJE-র দ্বারা উক্ত অনুচ্ছেদটিকে বাদ না দিয়ে বিলটিকে পুনঃপ্রস্তাব করার এবং লোকসভার আগামি সেশনগুলিতে পাস করিয়ে নেবার সম্ভাবনা অতি প্রবল।

প্রান্তিক লিঙ্গ ও যৌনসংখ্যালঘু গোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত অধিকাংশ মানুষের দ্বারা অবস্থাটা যতটা খারাপ বলে মনে করা হচ্ছে, তার থেকে কিন্তু পরিস্থিতি ঢের বেশি ভয়ানক। সংবিধানের ১৪১ এবং ১৪২ ধারা অনুযায়ী নালসা রায় এখনো অলঙ্ঘনীয় (যার মধ্যে সারা দেশের সমস্ত কোর্টগুলিও পড়ে) । কারণ, কোনো নির্দিষ্ট আইনের অনুপস্থিতিতে (এক্ষেত্রে লিঙ্গান্তরকামীতা বিষয়ক আইন) সুপ্রিম কোর্টের বিচারকবর্গের দ্বারা প্রদত্ত নির্দেশিকাই আইন হিসেবে পরিলক্ষিত হয় – যতক্ষণ না পর্যন্ত লোকসভা নিজে একটি আইন তৈরি করছে । অর্থাৎ, এই রায় আমাদের জন্য আছে যতক্ষণ না পার্লামেন্ট নিজে আইন তৈরি করছে, অর্থাৎ ততক্ষন পর্যন্ত যতক্ষণ না এই প্রবলভাবে আপত্তিকর “ট্রান্সজেন্ডার পারসনস প্রোটেকশন অফ রাইটস বিল”-টিকে পার্লামেন্টের দুটি সভাতেই পাস করিয়ে আনা হচ্ছে। যেদিন থেকে পার্লামেন্ট নালসা রায়ের উপর ভিত্তি করে একটি আইন নির্মানে সক্ষম হবে, সেদিন থেকেই উক্ত রায়টি তামাদি হয়ে যাবে এবং রূপান্তরকামী এবং অন্যান্য প্রান্তিক লিঙ্গের ব্যক্তিবর্গের সাংবিধানিক অধিকার রক্ষার জন্য আর তার সাহায্য নেওয়া যাবে না। এক কথায় বলতে গেলে, একবার যদি সরকার বিলটিকে লোকসভায় পাস করাতে সক্ষম হয়ে যায়, নালসা রায়ের যাবতীয় প্রগতিশীল নির্দেশিকাসমূহ ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে যাবে। সেজন্য এই বিলটির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

UNHRC-তে মৃত্যুদন্ড রদের বিরুদ্ধে ভারতের অবস্থানঃ

এই বছরের ২৯শে সেপ্টেম্বর ১২টি অন্যান্য দেশের সঙ্গে ভারতবর্ষও ইউনাইটেড নেশনসের হিউম্যান রাইটস কাউন্সিলে উত্থাপিত এমন একটি প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভোট দান করে যেটির উদ্দেশ্য ছিল মৃত্যুদন্ডকে বিরলের মধ্যে বিরলতম কেসগুলিতেই সীমাবদ্ধ করা এবং এর প্রয়োগ যাতে বৈষম্যমূলক না হয়, তা সুনিশ্চিত করা। প্রস্তাবটির অপর লক্ষ ছিল সেই সব লুকিয়ে থাকা কারণগুলিকে (যার মধ্যে জাতিগত এবং এথনিক পক্ষপাতিত্বও পড়ে) খুঁজে বের করা, যেগুলি মৃত্যুদন্ড প্রদানের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে কাজ করে থাকে।

বছরের পর বছর ধরে ভারত (সাধারণত) ইউনাইটেড নেশনসের জেনারেল অ্যাসেম্বলি বা হিউম্যান রাইটস কাউনসিলে উত্থাপিত মৃত্যুদন্ড রদ বিষয়ক ভোটাভুটিতে বিরুদ্ধেই ভোট দিয়ে এসেছে। সরকার বদলের সাথে কিন্তু এই অবস্থার খুব বেশি পরিবর্তন ঘটেনি। এই ভাবে আন্তর্যাতিক মঞ্চে ভারত তার নিজের পরিচয় তৈরি করে নিচ্ছে মানবাধিকার-সম্মত নীতির বিকাশের ক্ষেত্রে ঐচ্ছিক বাধাদানকারী হিসেবে। পৃথিবীর সর্ববৃহৎ গণতন্ত্রের পক্ষে যা একেবারেই উপযুক্ত নয়। একই সঙ্গে বলতে হয়, ভারতের এই অবস্থান দেশের সর্বোচ্চ আদালতের সিদ্ধান্তসমূহেরও ঠিক বিপরীতে, যা বরাবর মৃত্যুদন্ডের প্রয়োগের ব্যাপারে যথাসম্ভব রাশ টানবার চেষ্টা করে এসেছে।

যাই হোক, এই বছরের এই প্রস্তাবটি কিন্তু পূর্বতন প্রস্তাবগুলির থেকে বেশ কিছুটা আলাদা ছিল। কারণ, এই প্রথমবারের জন্য প্রস্তাবটিতে আলোচিত হয়েছে জাতিগত এবং এথনিক মাইনরিটি সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য সামঞ্জস্যবিহীনভাবে অধিক শাস্তিদানের বিষয়টা, এবং নিন্দিত হয়েছে ধর্মনিন্দা (ব্লাসফেমি), ধর্মপরিবর্তন (অ্যাপোস্ট্যাসি) এবং সম্মতিক্রমে ঘটা সমলৈঙ্গিক সম্পর্কের কারনে মৃত্যুদন্ডদানের বিষয়টা। দেখা গেছে, এমনকি এখানেও ভারতের ভোট সেই ‘না’ই থেকে গেছে।

যেহেতু ভারতীয় সংবিধানের অবস্থান এই যে, মৃত্যুদন্ড শুধুমাত্র বিরলতম ঘটনাগুলির ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য হবে, তাই এ ব্যপারে মৃত্যুদন্ড ভারতেও যে চালু হবে, সেই অলীক সম্ভাবনা শুরুতেই খারিজ হয়ে যাচ্ছে। এই রকম কোনোও আইন প্রণয়নের চেষ্টা হলে সর্বপ্রথম তা ধাক্কা খাবে ভারতীয় সংবিধানে। তবে, ভারত কিন্তু এরকম ৭৭টি রাষ্ট্রের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত যেগুলিতে ভিন্ন আইডেনটিটি বা লিঙ্গ এবং যৌন সংখ্যালঘুদের ব্যক্তিগত জীবনের কার্যকলাপকে অপরাধ হিসেবে তকমা দেবার মতো আইন আছে। এই সাতাত্তরটির মধ্যে ১১টি দেশ আবার কুইয়ার ব্যক্তিবর্গের জন্য মৃত্যুদন্ড বরাদ্দ করে রেখেছে। এ ছাড়া, ধর্মীয় মৌলবাদী শাসককূল, যারা ইরাক এবং সিরিয়ার কিয়দংশে আতঙ্কের সাম্রাজ্য পত্তন করেছে, নিয়মিতভাবে সমকামী-উভকামী-লিঙ্গান্তরকামীদের এই কারণে হত্যা করে থাকে। UNHRC-র প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে এটা পরিষ্কার করে দিয়েছে যে, এই দেশ এমন সব জঘন্য অপরাধকেও সমর্থন করে যাতে ‘ভালবাসার অধিকার’ (Right to Love), যা কিনা ‘জীবনের অধিকার’-এর (Right to Life) অংশবিশেষ, চূড়ান্তভাবে লঙ্ঘিত হয়। সুতরাং, ভারত সরকারকে অবশ্যই জবাব দিতে হবে সম্মতিক্রমে ঘটা সমলৈঙ্গিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে মৃত্যুদন্ডকে তা কি কারণে সমর্থন জানায়, এই প্রশ্নের। এ কি ধর্মীয় মৌলবাদের যে পথ ভারত সরকার ২০১৪ সালের সাধারন নির্বাচনের পর থেকে নিয়েছে, তার ফল? সরকারের গোপন ইচ্ছা কি আদপে সমস্ত কুইয়্যার ব্যক্তিবর্গকে হত্যা করাই? যেহেতু দেশের সংবিধান এটা করতে তাদের অনুমতি দেয় না, তাই কি তারা সমর্থন করছে অন্য দেশে ঘটা এই ধরনের হত্যাকে?

গত বছরও ভারত কোনো অবস্থান নিতে চায়নি অপর একটি UNHRC-র প্রস্তাবে, যেটা সমস্ত সদস্য রাষ্ট্রগুলিতে ভিন্ন লিঙ্গ এবং যৌনতার ব্যক্তিবর্গকে হিংসা এবং বৈষম্যমূলক আচরণের থেকে সুরক্ষা সুনিশ্চিত করবার প্রচেষ্টা চালায়। প্রথমে ভিন্ন লিঙ্গ এবং যৌনতার ব্যক্তিবর্গের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে অস্বীকার করা, এবং বর্তমানে গোপনে তাদের হত্যাকে সমর্থন জানানো – এই দুটি অবস্থানই গভীরভাবে সমস্যাজনক এবং আমাদের সংবিধানের তুলে ধরা নৈতিকতাকে কার্যত বিদ্রুপ করে। সরকার মনে হচ্ছে না এ ব্যাপারে বিশেষ গা করে বলে, যা অবশ্যই প্রতিরোধ করাটা প্রয়োজনীয়।

কাজ
 স্বেচ্ছাকর্মী দরকার ট্রায়াঙ্গুলার পার্কের জন্য পুলিশের কাছে অনুমতি নেয়ার জন্য
 সন্দীপ্তা একটি পার্ফর্ম্যান্স করতে চায় প্রাইড ওয়াকটি শুরু হওয়ার ঠিক আগেই, উনি এটির সকল দায়িত্ব নিয়েছেন

প্রি-প্রাইড ওয়ার্কশপ
 প্রি-প্রাইড ওয়ার্কশপের তারিখ কেআরপিএফ পরে ঘোষণা করবে

আমরা আপনাদের পরার্মশ, মন্তব্য, ও প্রতিক্রিয়া জানতে আগ্রহী উপরের উল্লেখিত বিষয়গুলি সম্বন্ধে, দয়া করে আপনার মতামত মেইলিং লিস্টে জানাবেন।

Here is a list of participants present at the 1st meeting (মিটিঙে অংশগ্রহণকারী ব্যক্তিদের তালিকা):

Abhinandan, Anamika Sarkar, Arunabha hazra, Asit Biswas, Atanu Kumar Bandyopadhyay, Avinaba Dutta, Deepanjan Datta, Dipankar Chanda, Jia, Kaustav Manna, Kaustuv Dasgupta, Kunal Chowdhury (Acted as the Chair for the meeting), Prabin, Prabir Das, Rudra, Sandeepta Das, Santanu Giri, Satyaki Chakraborty, Shampa Das, Souvik, Sukanata Banerjee, Sunay Howlader.

#KRPW2017

Pride through the ages

Pride has gone on every year, adding more colour and faces, fewer masks and more smiling faces… now you can see for yourself, how it has evolved over the years!

So without further ado, we present the collection of Pride event pictures from 2011 to 2015 (on our Flickr page):

CLICK HERE!

rainbow_pride_gay_lesbian_power_heart_love_heart_sticker-r79b2fe9e5d424cb39b78a0ff872d78b2_v9w0n_8byvr_324

Kolkata Rainbow Pride Walk 2016 pictures

Finally, the wait is over… we have pictures to boast.

Keep scrolling!

Want more? Click Here!

…and a bonus video!

…and one more 😀

…yet another ❤


The above pictures and video are the works of the following photographers: Niladri R. Chatterjee, Nilanjan Majumder, Kausik Gupta, Aditya Bandhyapadhya, Dipankar Chanda, Reekdeb Mal; they reserve the rights of their work and these may not be reproduced or republished without their permission. 

Kolkata Rainbow Pride 2016 on the press

fb_img_1481719295758Kolkata Rainbow Pride Walk 2016 took place on 11th December 2016 Sunday, lots of people turned up to make it a grand success, colours, cheers, slogans, performances, clicks-upon-clicks, costumes made it a carnival, probably the best this city sees annually, albeit with an important underlying spirit of liberation and hope.

Below are the links to its coverage on the media:

Apart from the above web links, KRPW 2016 was also covered in print media by newspapers such as Times of India, Ei Samay etc.

Also, you can hear Sandip Roy, the renowned author and journalist to describe the rally on KALW, the public radio station based in San Francisco, California:

This page will be occasionally updated as new links are published.

Kolkata Rainbow Pride Walk, 2016


KOLKATA RAINBOW PRIDE WALK 2016

Kolkata Rainbow Pride Walk 2016 is over.

This post is archived.


Kolkata Rainbow Pride Walk 2016 is upon us, the weather is beautiful and y’all want to know the details, so here they go…

  • When is it? – 11th December 2016. Sunday it is.
  • Where is it? – From Esplanade, Metro Y Channel (Near K. C. Das confectioners) to Park Circus Maidan, via Lenin Sarani, Mullick Bazar
  • When does it begin? – From 2 pm, be on time okay? 🙂
  • When does it end? – Some say 6 pm, some say, Pride never ends. 😉
  • Map please – Here you go: https://goo.gl/P57a0a

Everybody’s welcome in this celebration of inclusion and equality. If you have trouble moving around, do reach us via facebook or twitter. See you there. 🙂


Common Literature :

Version: English

Theme: Law and Human Rights

It has been two years since the Supreme Court of India granted Indian citizens the right to self determination of gender – the right that every person should be able to decide their own gender identity irrespective of their bodies or genitalia. The judgment included a broad range of gender non-conforming people under the ‘transgender’ label, and stated that transgender and hijra individuals would have the right to education, livelihood and health like any other Indian citizen (NALSA verdict, 2014). Still, transgender people continue to face various forms of discrimination.

In November 2016, Tara, a 28-year-old NGO worker, was found outside a police station in Chennai with severe burns on her body, and died soon after. Tara was thirunangai, the Tamil word for trans women or male-to-female transgender persons. Tara’s friends allege that the police had been harassing Tara. They had accused her of soliciting for sex work, confiscated her mobile phone, assaulted her and brought her in for questioning. Subsequently, she was found with burn injuries. More than a month later, there is still no answer to how she found petrol to immolate herself (as claimed by the police).

However, this atrocity is by no means an exception. In educational spaces, hospitals, workplaces, residential units, transgender people continue to face discrimination, physical and sexual harassment, sometimes violence leading to death. What has the State’s response been to such gross violations of human rights?

The Central Government of India has drafted a Transgender Persons’ (Protection of Rights) Bill, 2016, which has not incorporated any of the feedback from the community and is in complete violation of the Supreme Court verdict. The Bill recommends the institution of boards comprising psychiatrists and governmental representatives who will determine whether a person can be granted a transgender certificate. This contradicts the right to gender self-determination, as promised by the Supreme Court. Moreover, the Bill does not talk of any reservation for transgender people in education and jobs, or spell out what constitutes discrimination and violence against transgender people. It does not specify punitive consequences or mention the modes of welfare the State is obliged to deliver to transgender people. Meanwhile, Section 377 of the Indian Penal Code, which criminalizes all forms of sexual activity except peno-vaginal penetration, is still widely used to persecute a broad range of gender or sexually non-conforming persons, including lesbian, gay, bisexual, transgender, kothi and hijra people, among others.

In December 2013, the Supreme Court overturned a previous verdict that had removed same-sex activity from the purview of Section 377, and recriminalised all forms of sex other than peno-vaginal penetration. Since then, a spate of incidents of blackmail, extortion, sexual and physical assault against queer and transgender people have been reported. Here it is important to note that India’s rape laws have been amended to include any form of non-consensual sexual activity (in other words, any consensual sexual act is not rape). So, how does consensual sex other than peno-vaginal penetration continue to be criminalised under Section 377? Aren’t our rape laws and Section 377 incompatible? Although the curative petition against Section 377 has been admitted by the Supreme Court, there has been no further development.

The central government has been openly homophobic and transphobic in its attitude towards India’s millions of queer and transgender people. When will our rights become human rights?

However, our struggle as queer people is not a standalone one. We are also implicated in, and in solidarity with, many other struggles and movements. Our queer struggle for justice rests on a vision of an anti-caste, queer feminist, non-ableist, secular world, a world without military occupation, without the suppression of dissent. So as we walk for our rights today, we are also speaking with the many other marginalised people’s struggles and protest movements in India that share our dream.

Our Demands:
–          Withdraw the transphobic Transgender Persons’ (Protection of Rights) Bill, 2016 and introduce a new bill taking community needs into account. Honour the NALSA verdict.
–          Read down Section 377 of the Indian Penal Code to exclude consensual same-sex  activity from its purview.
–          Institute a thorough judicial enquiry into Tara’s murder.

fb_img_1480927207025

Version: Bengali

বিষয়: আইন এবং মানবাধিকার
২০১৪ সালে ভারতের সর্বোচ্চ ন্যায়ালয় একটি রায় ঘোষণা করেন যা দেশের সমস্ত নাগরিকদেরকে লিঙ্গ পরিচয় স্বনির্ধারণের অধিকার প্রদান করে – অর্থাৎ যে কোনো মানুষ তাঁর সমাজ-প্রদত্ত লিঙ্গ পরিচয় বা যৌনাঙ্গ নির্বিশেষে তাঁর নিজস্ব মনন অনুযায়ী তাঁর লিঙ্গ পরিচয় বেছে নেওয়ার অধিকার রাখেন | রায়টি ঘোষণা করে যে অন্য সমস্ত নাগরিকদের মতই রূপান্তরকামী, হিজড়ে ও অন্যান্য প্রান্তিক লিঙ্গের মানুষদেরও শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও জীবিকা নির্বাহের অধিকার রয়েছে (নালসা রায়, ২০১৪) | তথাপি, আজও রূপান্তরকামী ও প্রান্তিক লিঙ্গ পরিচয়ের মানুষেরা নানা রকমের বৈষম্যের সম্মুখীন হয়ে চলেছেন |
এই বছরের নভেম্বর মাসে তারা নামক একজন বেসরকারী সংগঠনের কর্মীকে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় চেন্নাইয়ের একটি পুলিশ থানার বাইরে পাওয়া যায়, এবং শীঘ্রই তিনি মারা যান |  তারা তিরুনাঙ্গাই ছিলেন, তামিল ভাষায় রূপান্তরকামী মহিলা বা পুরুষ-থেকে-নারী রূপান্তরকামী মানুষ | তারার বন্ধুরা দাবি করেন যে পুলিশ তারাকে মৃত্যুর  পূর্বে হেনস্থা করেছিল, তাঁর মোবাইল ফোন ও গাড়ির চাবি কেড়ে নিয়েছিল, এবং তাঁর ওপর যৌনকর্ম করার আরোপ লাগিয়ে তাঁকে হেফাজতে রেখে শারীরিক নির্যাতন করেছিল | পুলিশের দাবি যে তারা আত্মহত্যা করেছিলেন, কিন্তু  তাঁর মৃত্যুর পর এক মাসের অধিক পেরিয়ে যাওয়া সত্বেও পুলিশের কাছে উত্তর মেলেনি যে গায়ে আগুন দেওয়ার জন্য তারা পেট্রল কোথা থেকে পেয়েছিল |
এই নৃশংস নির্যাতনের ঘটনাটি কিন্তু ব্যাতিক্রম নয় | শিক্ষাক্ষেত্রে, হাসপাতালে, কর্মক্ষেত্রে, বাড়ি ভাড়া নিতে গিয়ে – নানা জায়গায় রূপান্তরকামী ও প্রান্তিক লিঙ্গ পরিচয়ের মানুষেদেরকে বিভিন্ন ধরনের বৈষম্যের সাথে যুঝতে হয়, শারীরিক ও যৌন হেনস্থা থেকে হিংসাত্মক মৃত্যু পর্যন্ত | প্রতিনিয়ত এইরূপ মানবাধিকার লঙ্ঘন রোধ করতে আমাদের সরকার কি সত্যিই কোনো উপযুক্ত ধাপ নিয়েছে?
সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকার ‘ট্রান্সজেন্ডার পার্সনস (প্রটেকশন অফ রাইটস) বিল’ অর্থাৎ ‘রূপান্তরকামী ব্যাক্তিদের (অধিকার সংরক্ষণ) বিধেয়ক, ২০১৬’ নামক একটি বিল বা খসড়া আইন সংসদে পেশ করেছে, যেটি রূপান্তরকামী গোষ্ঠীদের দেওয়া কোনো পরামর্শ গ্রাহ্য করেনি এবং সুপ্রিম কোর্টের উপরোক্ত নালসা রায়টিকে গুরুতর ভাবে লঙ্ঘন করেছে | এই বিল অনুযায়ী প্রতিটি জেলায় একটি করে কমিটি গঠন করা হবে যার মধ্যে কিছু মনোবিদ ও সরকারী প্রতিনিধি নিযুক্ত থাকবেন যাঁরা নাকি ঠিক করে দেবেন যে কোনো ব্যাক্তি ‘রূপান্তরকামী’ হওয়ার শংসাপত্র পাবে কি না | এই প্রস্তাবিত বিধি সুপ্রিম কোর্ট দ্বারা প্রদত্ত লিঙ্গ স্বনির্ধারণের অধিকারকে সম্পূর্ণ ভাবে লঙ্ঘন করে | উপরন্তু, বিলটি রূপান্তরকামী ও প্রান্তিক লিঙ্গের মানুষদের জন্যে শিক্ষা ও কর্মক্ষেত্রে কোনো রকমের সংরক্ষণের ব্যবস্থা রাখেনি, বৈষম্য বা হিংসা রোধ করতে কোনো দৃঢ় পদক্ষেপ নেয় নি,এবং এই জনগোষ্ঠীদের কল্যানের জন্যে কোনো নির্দিষ্ট সরকারী উদ্যোগ ঘোষণা করেনি | অন্য দিকে, ভারতীয় দন্ড বিধির ৩৭৭ ধারা, যা লিঙ্গ-যোনী সম্ভোগ ব্যতীত সমস্ত ধরনের যৌনক্রিয়া কে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে ঘোষণা করে, এখনও সমকামী, উভকামী, রূপান্তরকামী, কোতি ও হিজড়ে মানুষদের ওপর নির্যাতনের হাতিয়ার হিসেবে বহাল রয়েছে |
যদিও ২০০৯ সালে দিল্লির উচ্চ ন্যায়ালয় ৩৭৭ ধারার আওতা সীমিত করে সমলিঙ্গের মধ্যে যৌনক্রিয়াকে আইনি বৈধতা দেয়, ২০১৩ সালে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট ৩৭৭ ধারাকে আবার সম্পূর্ণ রূপে ফেরত আনে | এই রায়ের পর প্রান্তিক লিঙ্গ ও যৌনতার মানুষদের হুমকি দেওয়া, হেনস্থা করা বা শারীরিক ও যৌন নির্যাতন করার ঘটনা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেয়েছে | এই ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য যে ভারতের ধর্ষণ সংক্রান্ত আইনগুলিকে কিন্তু সম্প্রতি পরিবর্তিত করা হয়েছে যাতে যে কোনো ধরনের সম্মতিবিহীন যৌনক্রিয়া কে ধর্ষণের আওতায় ধরা যেতে পারে,যার অর্থ দাঁড়ায় যে সম্মতি সহ যে কোনো ধরনের যৌনসম্ভোগ কিন্তু ধর্ষণ বা যৌন অপরাধ নয় | তাহলে কেন লিঙ্গ-যোনী সম্ভোগ ব্যতীত অন্যান্য যৌনক্রিয়া সম্মতিসূচক হলেও শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে বিচার্য হবে? আমাদের ধর্ষণের আইন এবং ৩৭৭ ধারার মধ্যে কি একটি বিরোধ উপস্থিত হচ্ছে না? সম্প্রতি ৩৭৭ ধারার বিরুদ্ধে একটি প্রতিকারমূলক পিটিশন সুপ্রিম কোর্টে গৃহীত হয়েছে ঠিকই, কিন্তু তারপর বিষয়টির আর কোনো অগ্রগতি হয়নি |
অতয়েব দেখা যাচ্ছে যে কেন্দ্রীয় সরকার ভারতের অসংখ্য সমকামী-উভকামী-রূপান্তরকামী মানুষদের শুধু অবহেলা করেনি, খোলাখুলি ভাবে সমকামভীতি ও রূপান্তরকামভীতি প্রদর্শন করেছে | আমাদের অধিকার কবে মানুষের অধিকার হিসেবে স্বীকৃতি পাবে?
প্রান্তিক লিঙ্গ ও যৌনতার মানুষ হিসেবে আমাদের এই লড়াই কিন্তু শুধুমাত্র লিঙ্গ বা যৌন স্বাধীনতার স্বার্থে নয় – আমাদের প্রতিস্পর্ধার সাথে সংযুক্ত রয়েছে আরও বিভিন্ন ধরনের আন্দোলন, যথা শ্রেণীবিভাজন ও বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে লড়াই, নারী আন্দোলন ও প্রতিবন্ধকতাযুক্ত মানুষদের লড়াই, সাম্প্রদায়িকতা এবং সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে লড়াই | আমরা স্বপ্ন দেখি বর্ণ-শ্রেণী বিহীন এক দুনিয়ার,অর্থনৈতিক শোষণ ও সামরিক আগ্রাসন বিহীন এক দুনিয়ার, এমন এক দুনিয়ার যেখানে স্বাধীন চিন্তা দমন করা হয় না | তাই, আজ যখন আমরা রাস্তায় নেমেছি, আমরা সকল প্রান্তিক এবং অবদমিত মানুষদের লড়াইয়ের সাথে আমাদের সংহতি জানাই যারা আমাদেরই মতন সাম্য ও ন্যায়ের স্বপ্ন দেখে |
আমাদের দাবি:
–       লিঙ্গ স্বনির্ধারনের পরিপন্থী ‘ট্রান্সজেন্ডার পার্সনস (প্রটেকশন অফ রাইটস) বিল’ প্রত্যাহার করে এমন একটি আইন আনা হোক যেটি রূপান্তরকামী ও প্রান্তিক লিঙ্গের গোষ্ঠীদের প্রয়োজন বুঝে উপযুক্ত পদক্ষেপ নেবে; নালসা রায়কে মান্যতা দিতে হবে |
–       ভারতীয় দন্ডবিধির ৩৭৭ ধারার আওতা থেকে সমলিঙ্গের মধ্যে সম্মতিসূচক যৌনক্রিয়া কে বাদ দিতে হবে |
–       তারার হত্যা নিয়ে যথাযথভাবে বিচার বিভাগীয় তদন্ত করতে হবে |

fb_img_1480927402164

Version: Hindi

विषय: कानून और मानव अधिकार

२०१४ में सरवोच्च न्यायलय ने नालसा निर्णय में भारत के सभी नागरिकों को अपना लिंग परिचय खुद चुनने का हक़ दिया। यानि की, सामाजिक लिंग परिचय या यौन अंगों से परे हर इंसान को अपना लिंग परिचय खुद चुनने का हक़ होगा। साथ ही ये कहा गया कि तृतीय लिंग के व्यक्तियों को किसी भी अन्य नागरिक की तरह शिक्षा, रोज़गार, और स्वास्थ्य का हक़ मिलेगा। इस निर्णय में कई प्रकार के प्रान्तिक लिंग परिचय के इंसानों को “ट्रांसजेंडर” के अन्तर्गत शामिल किया गया।  ये भी कहा गया कि ट्रांसजेंडर और हिजड़ा सम्प्रदाय के लोगों को किसी भी अन्य नागरिक की तरह शिक्षा, रोज़गार, और स्वास्थ्य का हक़ मिलेगा।  मगर, आज इस निर्णय के दो साल बाद भी किन्नरों और तृतीय किंग के अन्य लोगों को कई प्रकार के भेदभाव का सामना करना पड़ रहा है।
नवम्बर २०१६ में तारा नाम के एक तिरुनानगई (ट्रान्स या रूपांतरकामी महिला) को  चेन्नई के एक थाने के बाहर बुरी तरह से जल हुआ पाया गया।  तारा, जो की एक एन जी ओ में भी काम करती थी, के जानने वालों का कहना है के पुलिस उसे कई तरह से परेशान कर रही थी।  उन्होंने उसका मोबाईल फ़ोन और स्कूटर की चाबियाँ छीन लीं थीं और उस पर वेश्यावृत्ति का भी आरोप लगाया था। उसे मारा पीटा गया और पूछताछ के लिए थाने लाया गया।  बाद में उसे जली हुई अवस्था में पाया गया मगर एक महीना गुज़र जाने के बाद भी पता नहीं चल सका के अगर उसने (पुलिस के कहने के अनुसार) ख़ुदकुशी की तो उसे पेट्रोल कहाँ से मिला।
मगर,सच कहें तो ये भयंकर अत्याचार नया नही है। स्कूल/कॉलेज,  अस्पताल, कामकाज, घर, हर जगह तृतीय लिंग के लोगों पर भेदभाव और शारीरिक व यौन अत्याचार होते हैं, अक्सर उनकी मौत हो जाती है। मगर मानवाधिकारों के इस घोर उल्लंघन में सरकार की क्या प्रतिक्रिया है ?
केंद्र सरकार ने एक ट्रांसजेंडर व्यक्तियों ‘(अधिकार संरक्षण) विधेयक का मसौदा तैयार किया है। मगर इसमें समुदाय से लिए गए किसी सुझाव को शामिल नहीं किया गया। ये सरवोच्च न्यायलय के निर्णय का उल्लंघन करता है। न्यायलय ने स्पष्ट रूप से कहा था के व्यक्ति अपना लिंग परिचय खुद निर्धारित करेगा मगर इस विधेयक में बोर्ड्स की बात की गयी है जिसमे मनोचिकित्सक और सरकारी प्रतिनिधि होंगे जो ये निर्धारण करेंगे की ट्रांसजेंडर का सर्टिफिकेट मिलेगा या नहीं।  इसके अलावा, न्यायलय ने शिक्षा और रोज़गार के अधिकार की बात की थी मगर इस विधेयक में शिक्षा या काम में आरक्षण का कोई उल्लेख नहीं है। विधेयक स्पष्ट नहीं करता के ट्रांसजेंडर के विरुद्ध भेदभाव या हिंसा में क्या क्या निहित है और इस तरह के व्यवहार का दंड क्या होना चाहिए।  न ही इसमें सरकार  द्धारा दिए जाने वाले किसी सुविधा का उल्लेख है।
दूसरी तरफ, भारतीय दंड विधि धारा ३७७ का इस्तेमाल तृतीय लिंग और अन्य प्रान्तिक लिंग और यौन परिचय के लोगों – जैसे लेस्बियन, गे, बाइसेक्सयुअल, ट्रांसजेंडर, कोती, हिजड़ा, वगेरह -लोगों पर कई प्रकार के अत्याचार करने के लिए हो रहा है।  २०१३ के न्यायलय के निर्णय से जहाँ बालिग लोगों के बीच सहमति से हुआ कई प्रकार का यौन व्यवहार फिर से दंडनीय कर दिया गया, वहीँ से शुरू हुआ एक नया सिलसिला – ब्लैकमेल, जबरन वसूली, यौन और शारीरिक अत्याचार – क्वियर और ट्रान्स लोगों पर अत्याचार का। हाल में हुए संशोधन से बलात्कार सम्बंधित कानून मे हर किस्म के यौन उत्पीडन (बिना सहमति के)  को दंडनीय बनाया गया है।  यानि, इसके अन्तर्गत, सम्मति से हुआ किसी ही प्रकार का यौन सम्बन्ध बलात्कार नहीं है। फिर कैसे सहमति से हुए, बालिग लोगों के किसी भी प्रकार के यौन सम्बन्ध को ३७७ द्वारा दंडनीय  किया जा सकता है? क्या इस से बलात्कार सम्बन्धित कानून और ३७७ में विरोध नही होता ? ३७७ के विरुद्ध उपचारात्मक याचिका (कियूरेटिव पेटिशन) को न्यायलय ने सुनवाई के लिए दाखिल तो किया है मगर बात उस से आगे नहीं बढ़ी है।

केंद्र सरकार भारत के लाखों क्वियर और ट्रान्स नागरिकों के प्रति अपनी घृणा और भेदभाव का रवैया दिखती रही है। हमारे अधिकार कब इनकी नज़रों में मानव अधिकारों में शामिल होंगे ?
फिर भी, क्वियर नागरिकों के नाते हमारी लड़ाई अकेली लड़ाई नहीं है।  कई लड़ाइयों से, आंदोलनों से हमारा सरोकार है, दोस्ताना है। हमारी कवीर आंदोलन में, समानता और न्याय का आधार है एक जातिहीन, क्वियर नारीवादी, धर्म निरपेक्ष समाज जहाँ अपंगता के कारण कोई भेदभाव न हो।  यही वजह है के अपने अधिकारों की बात करते हुए आज हम उन सब प्रान्तिक और विरोधी आंदोलनों की भी बात कर रहे हैं जिनका सपना है एक आदर्शलोक — एक ऐसा समाज जहाँ जाती, संप्रदाय, लैंगिकता, लिंग परिचय, विकलांगता, के आधार पर भेदभाव न हो।  जहाँ सैन्य कब्ज़ा न हो, और असंतोष और मतभेद का दमन न हो।  जहाँ कानून हर नागरिक के मानवाधिकारों की रक्षा करेगा, उनके उल्लंघन का जरिया नहीं बनेगा।
हमारी मांगें :
·         इस ट्रान्स विरोधी ट्रांसजेंडर व्यक्तियों ‘(अधिकार संरक्षण) विधेयक, २०१६ को वापस लिया जाये और एक ऐसा विधेयक तैयार किया जाये जिसमे नालसा निर्णय से विरोध न हो और जो संप्रदाय की ज़रूरतों के अनुसार बना हो।
·         भारतीय दंड विधि की धारा ३७७ को संगशोधित किया जाये।
·         तारा की हत्या की न्यायिक जांच की जाये।